• ঢাকা

  •  রোববার, জানুয়ারি ২৯, ২০২৩

জীবন-যাপন

পিৎজা, বার্গার দীর্ঘদিন খেলে ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়তে পারে

অনলাইন ডেস্ক:

 প্রকাশিত: ১৩:৩৫, ২৯ নভেম্বর ২০২২

পিৎজা, বার্গার দীর্ঘদিন খেলে ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়তে পারে

ফাস্টফুড খেতে পছন্দ করেন এমন যারা আছেন তাদের জন্য সতর্কবার্তা। কারণ পিৎজা, বার্গার, বিস্কুট, কোল্ড ড্রিংকস এবং বিভিন্ন ধরনের আল্ট্রা-প্রসেসড খাবার দীর্ঘদিন খেলে কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়তে পারে। কারন এই রোগটি পারিবারিক ইতিহাস, ক্রমবর্ধমান বয়স এবং খারাপ লাইফস্টাইলের সঙ্গে সম্পর্কিত।

সম্প্রতি করা একটি নতুন গবেষণায় দেখা গেছে যে যদি একজন ব্যক্তির লাইফস্টাইল দীর্ঘদিন ধরে খারাপ থাকে তবে তিনি এই রোগের শিকার হতে পারেন।

গবেষণায় ২৯ শতাংশ পুরুষ যারা অতি প্রক্রিয়াজাত খাবার গ্রহণ করেন তাদের মধ্যে এই রোগের সম্ভাবনা পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞানীরা আরো দেখেছেন, যেসব মহিলারা বেশিকরে 'রেডি টু ইট' খাবার খান তাদের মধ্যে কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি ১৭ শতাংশ বেড়ে যায়।

আল্ট্রা প্রসেসড ফুড কী এবং কেন এটি ক্যান্সারের কারণ হতে পারে?:

আল্ট্রা-প্রসেসড খাবারে এমন উপাদান পাওয়া যায় যা আপনি সাধারণত বাড়িতে রান্না করার সময় ব্যবহার করেন না, যেমন রাসায়নিক এবং মিষ্টি, যা শরীরের অনেক ক্ষতি করে। অতি-প্রক্রিয়াজাত এবং প্রক্রিয়াজাত খাবারের মধ্যে পার্থক্য অনেক। প্রক্রিয়াজাত খাবারের মধ্যে রয়েছে গরম করা, হিমায়িত করা, ডাইসিং, জুসিং। প্রক্রিয়াজাত খাবার আপনার জন্য তেমন ক্ষতিকর নয়।

অতি-প্রক্রিয়াজাত খাবার যা সাধারণত খাওয়া হয় এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি হলো - ইনস্ট্যান্ট নুডলস এবং স্যুপ, রেডি টু ইট মিলস, প্যাকড স্ন্যাকস, ফিজি কোল্ড ড্রিংকস, কেক; বিস্কুট; মিষ্টি এবং পিজ্জা, পাস্তা ও বার্গার। এই খাবারগুলো সস্তা এবং সহজলভ্য তবে এতে প্রচুর ক্যালোরি বিদ্যমান। এ কারণে আপনি আপনার খিদের চেয়ে বেশি খান এবং তারপরে ওজনও বাড়তে শুরু করে।

অতি-প্রক্রিয়াজাত খাবার পশ্চিমের জীবনধারার একটি স্বাভাবিক অংশ হয়ে উঠেছে। প্রায় ২৩ হাজার মানুষের উপর পরিচালিত অন্য একটি গবেষণায়, বিজ্ঞানীরা অস্বাস্থ্যকর খাদ্য এবং অতি-প্রক্রিয়াজাত খাবার গ্রহণকারীদের মধ্যে উচ্চ মৃত্যুর হার খুঁজে পেয়েছেন।

তাই বিজ্ঞানীরা বলছেন, অতি-প্রক্রিয়াজাত খাবার থেকে দূরত্ব তৈরি করা উচিত।

ব্রাজিলে করা একটি সমীক্ষা অনুসারে, এটি একটি সাধারণ বিশ্বাস যে অতি-প্রক্রিয়াজাত খাবার খুব সাধারণ এবং আমরা চাইলেও এড়িয়ে যেতে পারি না, যদিও আসলে এটি ভুল। আসলে, কোনো ধরনের ডায়েটেই অতি-প্রক্রিয়াজাত খাবারের প্রয়োজন হয় না। লোকেরা কেবল সুবিধা এবং স্বাদের জন্য এটিকে তাদের ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করেন।

বেশিরভাগ অতি-প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্যে ফ্যাট, চিনি এবং লবণ বেশি থাকে। যেখানে স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয় ফাইবার এবং পুষ্টির অভাব থাকে। আপনিও যদি এই ধরনের অস্বাস্থ্যকর খাবার এড়াতে চান, তবে এর জন্য আপনাকে আপনার ডায়েট কঠোর করতে হবে।

এটা মনে রাখতে হবে যে, আপনার স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী খাদ্যপণ্য গ্রহণ করা উচিত।

নভেম্বর ২৯, ২০২২

এসবিডি/এবি/

মন্তব্য করুন: