• ঢাকা

  •  মঙ্গলবার, জুন ১৮, ২০২৪

বাংলাদেশ

এবার ভোটে একাদশ সংসদের ৫৯ এমপি ধরাশায়ী

ডেস্ক নিউজ

 প্রকাশিত: ১০:৩৮, ১১ জানুয়ারি ২০২৪

এবার ভোটে একাদশ সংসদের ৫৯ এমপি ধরাশায়ী

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ৫৯ এমপি হেরে গেছেন। যারা গতবার বিএনপি জোটের প্রার্থীকে বিপুল ভোটে হারিয়ে এমপি হয়েছিলেন, তাদের অন্তত ১৫ জনের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। যদিও পরাজিত ৫৯ এমপির অনেকেই একাদশ সংসদে পা রেখেছিলেন ৭০ থেকে ৯৮ শতাংশ ভোটে জয়ী হয়ে। তাদের অধিকাংশের বিরুদ্ধে আগেরবার অস্বাভাবিক ভোট পাওয়া, ক্ষমতার দাপট, দুর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে।

আওয়ামী লীগের মনোনীত ২৬ এমপি এবার পরাজিত হয়েছেন। তাদের সবাই নিজ দলের মনোনয়নবঞ্চিত স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিপক্ষে হেরেছেন। তিনজন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আসতে পারেননি; তৃতীয় হয়েছেন। জামানত হারিয়েছেন একজন। জাতীয় পার্টির (জাপা) ১০ এমপি হেরেছেন। পাঁচজনের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। ওয়ার্কার্স পার্টি ২ এবং জাসদ, জেপি, তরীকত ফেডারেশন ও বিকল্পধারার একজন করে মোট ছয় এমপি এবারের নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন। আরেক স্বতন্ত্র এমপি এবার জিততে পারেননি, জামানতও হারিয়েছেন। 

আওয়ামী লীগের ১৭ ও জাপার দুই এমপি মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন। তাদের তিনজন জয়ী হয়েছেন। বাকি ১৬ এমপি হেরেছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে পরাজিত এমপিদের চারজন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আসতে পারেননি; জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

অবশ্য আওয়ামী লীগের মনোনয়নবঞ্চিত, ওয়ার্কার্স পার্টি ও তরীকতের তিন এমপি নির্বাচনের আগের বিভিন্ন সময়ে ভোটের লড়াই থেকে সরে দাঁড়ান। যদিও ব্যালটে তাদের নাম ছিল। এ হিসাবে পরাজিত এমপিদের তালিকায় তারাও রয়েছেন। 

একাদশ সংসদের দলীয় ৭১ এমপিকে মনোনয়ন দেয়নি আওয়ামী লীগ। সাত এমপি নৌকা পেয়েও হারান শরিকদের সঙ্গে সমঝোতায়। এই ৭৮ এমপির ৬১ জন প্রার্থী হননি। জাতীয় পার্টির ৩ ও জাসদের ১ এমপি নির্বাচন করেননি। সব মিলিয়ে একাদশ সংসদের ৬৫ এমপি নির্বাচন করেননি। পরাজিত ৫৯ জনসহ একাদশের ১২৪ এমপি থাকছেন না নতুন সংসদে। তাদের আসনে জয়ী ৮৫ জন প্রথমবারের মতো এমপি হয়েছেন। বাকি ৩৯ জন অতীতে এমপি ছিলেন।

আগে দাপুটে জেতা নৌকার যে এমপিরা এবার হারলেন:
আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েও জিততে পারেননি এমন ২৬ এমপি হলেন– দিনাজপুর-১ মনোরঞ্জন শীল গোপাল, নাটোর-১ শহিদুল ইসলাম, কুষ্টিয়া-১ আ ক ম সরওয়ার জাহান, কুষ্টিয়া-৪ সেলিম আলতাফ জর্জ, ঝিনাইদহ-২ তাহজীব আলম সিদ্দিকী, যশোর-৫ স্বপন ভট্টাচার্য্য, যশোর-৬ শাহীন চাকলাদার, বরগুনা-১ ধীরেন্দ্র নাথ শম্ভু, শেরপুর-১ আতিউর রহমান আতিক, ময়মনসিংহ-১ জুয়েল আরেং, ময়মনসিংহ-৬ মোসলেম উদ্দিন, ময়মনসিংহ-৭ রুহুল আমীন মাদানী, ময়মনসিংহ-১১ কাজিম উদ্দিন আহমেদ ধনু, নেত্রকোনা-৩ অসীম কুমার উকিল, মানিকগঞ্জ-২ মমতাজ বেগম, মুন্সীগঞ্জ-৩ মৃণাল কান্তি দাস, ঢাকা-১৯ এনামুর রহমান, গাজীপুর-৫ মেহের আফরোজ চুমকি, মাদারীপুর-৩ আবদুস সোবহান মিয়া গোলাপ, হবিগঞ্জ-৪ মাহবুব আলী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ মো. ফরহাদ হোসেন, কুমিল্লা-২ সেলিমা আহমাদ, কুমিল্লা-৩ ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, কুমিল্লা-৪ রাজী মোহাম্মদ ফখরুল, কুমিল্লা-৫ আবুল হাসেম ও চট্টগ্রাম-১৫ আসনে আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী।

বিপুল ভোটে জেতা জাপা এমপিদের এবার জামানত জব্দ
লাঙ্গল পেয়ে পরাজিত জাপার ১০ এমপি হলেন– নীলফামারী-৩ রানা মো. সোহেল, নীলফামারী-৪ আহসান আদেলুর রহমান, কুড়িগ্রাম-২ পনির উদ্দিন আহমেদ, গাইবান্ধা-১ ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী, বগুড়া-৩ নুরুল ইসলাম তালুকদার, বরিশাল-৬ নাসরিন হাওলাদার রত্না, ময়মনসিংহ-৮ ফখরুল ইমাম, ঢাকা-৪ সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, নারায়ণগঞ্জ-৩ লিয়াকত হোসেন খোকা ও সুনামগঞ্জ-৪ পীর ফজলুর রহমান।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে জিততে পারেননি এমপিরা
আওয়ামী লীগে মনোনয়নবঞ্চিত এমপিদের মধ্যে গাইবান্ধা-৪ মনোয়ার হোসেন চৌধুরী, নওগাঁ-৩ ছলিম উদ্দিন তরফদার, নওগাঁ-৪ ইমাজউদ্দিন প্রামাণিক, রাজশাহী-৪ এনামুল হক, ঝিনাইদহ-৩ শফিকুল আজম খান চঞ্চল, যশোর-৪ রঞ্জিত কুমার রায়, সাতক্ষীরা-২ মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, বরিশাল-৪ পঙ্কজ নাথ, টাঙ্গাইল-৫ ছানোয়ার হোসেন, জামালপুর-৪ মুরাদ হাসান, ময়মনসিংহ-৯ আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন, গাজীপুর-৩ ইকবাল হোসেন সবুজ, সুনামগঞ্জ-১ মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, সুনামগঞ্জ-২ জয়া সেনগুপ্তা, হবিগঞ্জ-২ আবদুল মজিদ খান, চট্টগ্রাম-১২ সামশুল হক চৌধুরী ও কক্সবাজার-১ আসনে জাফর আলম স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন।

জয়ী হয়েছেন শুধু পঙ্কজ নাথ, ছানোয়ার হোসেন ও জয়া সেনগুপ্তা।

জামানত হারিয়েছেন চারজন। গত নির্বাচনে গাইবান্ধা-৪ আসনে মনোয়ার হোসেন চৌধুরী ৯৬ শতাংশ ভোটে জয়ী হন। এই এমপি এবার ভোটের দিন সংবাদ সম্মেলনে কারচুপির অভিযোগ তুলে পুনর্নির্বাচনের দাবি করেন। এবার তিনি ২ শতাংশ ভোটও পাননি। নওগাঁ-৪ আসনে ইমাজউদ্দিন প্রামাণিক গত নির্বাচনে ৭২ শতাংশ ভোট পেয়ে ষষ্ঠবারের মতো এমপি হয়েছিলেন। এবার পেয়েছেন পৌনে ৭ শতাংশ ভোট। দু’জনেরই জামানত জব্দ হয়েছে।

জাপার দুই এমপি রংপুর-১ মসিউর রহমান রাঙ্গা ও পিরোজপুর-৩ রুস্তম আলী ফরাজী মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হন। গত নির্বাচনে ৯১ শতাংশ ভোট পাওয়া রাঙ্গা এবার পেয়েছেন ২১ শতাংশ। ফরাজী গতবার ৯৩ শতাংশ ভোটে এমপি হলেও এবার পেয়েছেন ৪৩ শতাংশ ভোট।

১৪ দল এবং অন্য যে এমপিরা পরাজিত
কুষ্টিয়া-২ আসনে জাসদের হাসানুল হক ইনু, রাজশাহী-২ আসনে ওয়ার্কার্স পার্টির ফজলে হোসেন বাদশা ও পিরোজপুর-২ আসনে জেপির আনোয়ার হোসেন মঞ্জু জিততে পারেননি। পরাজয়ের শঙ্কায় দুই এমপি প্রচারে নেমেও বসে পড়েন। তারা হলেন সাতক্ষীরা-১ আসনের মোস্তফা লুৎফুল্লাহ ও চট্টগ্রাম-২ আসনের নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী। লুৎফুল্লাহ গত নির্বাচনে ৯৫ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন। মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে বিকল্পধারার এমপি মাহী বি. চৌধুরী গত নির্বাচনে ৮৬ শতাংশ ভোটে জয়ী হলেও এবার ৯ শতাংশ ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন; হারিয়েছেন জামানত। 

গত নির্বাচনে বগুড়া-৭ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী রেজাউল করিম বাবলু বিএনপির সমর্থনে ৭৪ শতাংশ ভোট পেয়ে এমপি হয়েছিলেন। এবার ২ শতাংশের কম ভোট পেয়েছেন। সূত্র : সমকাল

এসবিডি/এবি

মন্তব্য করুন: