• ঢাকা

  •  রোববার, এপ্রিল ২১, ২০২৪

অর্থ ও কৃষি

তাড়াশের খেজুর গুড় মানে খাঁটি, স্বাদে ভরপুর

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:

 প্রকাশিত: ২০:৩৪, ৩০ ডিসেম্বর ২০২২

তাড়াশের খেজুর গুড় মানে খাঁটি, স্বাদে ভরপুর

ছবি: সময়বিডি.কম

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জের তাড়াশে তৈরি হচ্ছে সুস্বাদু খেজুরের গুড়। শীত মৌসুমের শুরুতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা গাছিরা স্থানীয় কৃষকদের কাছ থেকে খেজুরের গাছ লিজ নিয়ে এই গুড় তৈরি করেন। যা স্থানীয় চাহিদা পূরণ করে চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলায়। গুড়ের মান ও স্বাদ ভালো হওয়ায় ব্যাপক চাহিদা থাকায় ও বর্তমানে বাজারে গুড়ের দাম পাওয়ায় বেশি লাভের মুখ দেখছেন এই গুড়ের কারিগররা। এই ভেজালমুক্ত ভালো মানের সুস্বাদু গুড়ের রয়েছে দেশে বিভিন্ন অঞ্চলে ব্যাপক চাহিদা।

শীত এলেই বৃহত্তর চলনবিল অধ্যুষিত তাড়াশ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ব্যস্ত হয়ে পরেন গাছিরা। গাছ থেকে খেজুরের রস এনে তা মাটির তৈরি বিশেষ চুলায় জাল দিয়ে তৈরি করা হয় খাঁটি মানের খেজুরের গুড়। উপজেলার প্রায় প্রতিটি গ্রামেই চোখে পড়বে এমন দৃশ্য।

উপজেলার দেশীগ্রাম ইউনিয়নের মাঝদক্ষিনা গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, সকালে গাছিরা গাছ থেকে খেজুর রস সংগ্রহ করে এনে বড় পাত্রে রস জ্বাল দিচ্ছেন। 

কথা হয় খেজুর গুড়ের কারিগর গাছি কামরুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি সময়বিডি.কম-কে জানান, ভোরে গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে গুড় তৈরি করে থাকেন। এ বছর প্রতি কেজি ভেজালমুক্ত গুড় ১৮০ টাকা দরে বিক্রি করছেন খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে। যত শীত বাড়ে ততই রসের মান ভালো হয়। এতে গুড়ের মানও ভাল হয় বলে জানান তিনি।  

কৃষি অফিসের তথ্যমতে, উপজেলায় আটটি ইউনিয়নের প্রায় ৩০ হাজার খেজুর গাছ রয়েছে। এ গাছগুলো থেকেই রস সংগ্রহ করে গুড় তৈরি করা হয়।

তাড়াশ উপজেলার ভাদাস গ্রামে আসা গাছি আব্দুল আজিজ জানান, প্রতি কেজি গুড় ১৬০-১৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে গুড় সঠিক বাজারজাতকরণের কারনে এবছর ভালো দাম পাচ্ছেন তারা।

উপজেলার বিন্নাবাড়ি গ্রামের গাছি রহমান আলী জানান, দিন দিন এই অঞ্চলে গুড়ের উৎপাদন বাড়ছে। আর এর মান ধরে রাখতে স্থানীয় কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকেও দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন পরামর্শ।

স্থানীয় প্রবীণ ব্যাক্তি শাহ আলম বলেন, চলনবিল অধ্যুষিত তাড়াশ উপজেলায় দেশের বিভিন্ন এলাকা গাছিরা এসে খেজুর গাছের মালিকদের সাথে চুক্তি করেন। পরে তারা গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে গুড় তৈরি করেন। এই গুড় অত্যান্ত সুস্বাদু ও মান অনেক ভালো। এছাড়া এই এলাকার মানুষ গুড় দিয়ে শীতের পিঠা তৈরি করে আত্মীয়-স্বজন নিয়ে আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে উঠেন।

তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন সময়বিডি.কম-কে বলেন, কৃষি বিভাগের হিসাবমতে প্রায় ৩০ হাজার খেজুর গাছ রয়েছে। আর এ অঞ্চলের গুড়ের মান ও স্বাদে ভরপুর হওয়ায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে রয়েছে চাহিদা। ভেজালমুক্ত গুড় তৈরি করেন চাষিরা সেদিকে নজরদারী করা হয় বলেও জানান তিনি।

ডিসেম্বর ৩০, ২০২২

মৃণাল সরকার মিলু/এবি/

মন্তব্য করুন: