• ঢাকা

  •  সোমবার, মার্চ ৪, ২০২৪

খেলার মাঠে

ফ্রান্সকে হারিয়ে ৩৬ বছর পর বিশ্বকাপ ট্রফি আর্জেন্টিনার

অনলাইন ডেস্ক:

 আপডেট: ০৯:৩০, ১৯ ডিসেম্বর ২০২২

ফ্রান্সকে হারিয়ে ৩৬ বছর পর বিশ্বকাপ ট্রফি আর্জেন্টিনার

দুর্দান্ত ম্যাচের অবসান হল টাইব্রেকারে। ৪-২ ব্যবধানে টাইব্রেকারে জিতে বিশ্বকাপ নিয়ে গেল আর্জেন্টিনা। বিশ্বকাপ ফাইনালে হ্যাটট্রিক করেও ট্র্যাজিক হিরো থাকতে হলো এমবাপেকে।

অতিরিক্ত সময়ে পিছিয়ে গিয়েও সমতা ফেরায় ফ্রান্স। এমবাপের শট আটকাতে গিয়ে বক্সের মধ্যেই বল হাতে লাগালেন মন্তিয়েল। রেফারি সঙ্গে সঙ্গে পেনাল্টির নির্দেশ দিলেন। পেনাল্টি থেকে গোল করলেন এমবাপে। বিপক্ষ গোলকিপার এমিলিয়ানোর কিছু করার ছিল না। 

খেলার প্রথমার্ধে ফ্রান্স যে কতটুকু বিভ্রান্ত ছিল সেটা তাদের খেলা দেখেই বোঝা যাচ্ছে। নিজেদের মধ্যে পাস খেলতে গিয়ে বল বাইরেই বের করে দিলেন ফুটবলাররা। নিজেদের মধ্যে কোনো বোঝাপড়াই নেই তাদের। নিয়ন্ত্রণে থাকা বলও হারিয়ে ফেলল তারা।

ফাইনালের শেষ প্রান্তে এসে মাতিয়ে দিলেন এমবাপে। দু’মিনিটে দু’টি গোল করলেন তিনি। প্রথমে ফ্রান্সের আক্রমণের সময় বক্সের মধ্যে হাঁটু দিয়ে কোলো মুয়ানিকে মারেন ওটামেন্ডি। পেনাল্টি থেকে গোল করেন এমবাপের। পরের মুহূর্তেই আবার আক্রমণ করে ফ্রান্স। ডান দিক থেকে এমবাপেকে লম্বা বল বাড়িয়েছিলেন কোমান। হাঁবিয়ের সঙ্গে দ্রুত পাস খেলে মাটিতে পড়ে যেতে যেতে অনবদ্য শটে গোল করলেন।

শেষ মুহূর্তে দু’টি গোল পেয়ে যাওয়ায় অনেক বেশি উৎসাহ নিয়ে খেলতে নেমেছে ফ্রান্স। উল্টো দিকে, আর্জেন্টিনার ফুটবলারদের আত্মবিশ্বাস কিছুটা কম লাগছে। শেষ বেলায় দু’টি গোল খেয়ে যাওয়া অনেকেই বিশ্বাস করতে পারছেন না। গোলের লক্ষ্যে আলভারেসকে তুলে লাউতারোকে নামালেন স্কালোনি।

নির্ধারিত সময়ে আর কোনো গোল হল না। ম্যাচ গড়াল অতিরিক্ত সময়ে। শেষ ১০ মিনিটে একের পর এক আক্রমণ দেখা গেল ফ্রান্সের। আরো একটি গোল করতে পারতো তারা।

হঠাৎই জেগে উঠল আর্জেন্টিনা। প্রথমে লাউতারোর শট বাঁচালেন ফরাসি ডিফেন্ডার। পরক্ষণেই ম্যাক অ্যালিস্টারের শট হেড করে উড়িয়ে দিলেন ভারানে। অতিরিক্ত সময়ে দুরন্ত আক্রমণে গোল দিলেন মেসি। লাউতারো মার্তিনেসের শট দারুণ ভাবে বাঁচিয়ে দিলেও শেষ রক্ষা করতে পারলেন না। ফিরতি বল মেসির হাঁটুতে লেগে গোলে ঢুকে গেল। বিশ্বকাপের ফাইনালে জোড়া গোল হয়ে গেল মেসির। ফ্রান্স অফসাইডের আবেদন করেছিল। কিন্তু ভার-এর চিত্রে দেখা গেল, ফ্রান্সের ডিফেন্ডার কিছুটা ভেতরে ঢুকে ছিলেন।

বাঁ দিক থেকে বল নিয়ে ফ্রান্সের গোলমুখে ঢুকছিলেন মেসি। বক্সের বাইরে থেকেই বাঁ পায়ে দুরন্ত শট নিয়েছিলেন তিনি। এক হাতে অনবদ্য ভঙ্গিতে সেটি বাঁচিয়ে দিলেন হুগো লরিস। দিনের সেরা সেভ। ম্যাচের প্রথম দিকে যে ঝাঁজ দেখা যাচ্ছিল আর্জেন্টিনার আক্রমণে, সেই ঝাঁজ দেখা গেল ফ্রান্সের খেলায়।

আবার আক্রমণ করেছিল ফ্রান্স। এ বার বাঁ দিক থেকে আক্রমণে ঢুকেছিলেন কিংসলে কোমান। পাস দিয়েছিলেন এমবাপে। সেখান থেকে বল পেয়ে হাঁবিয়ের শট বাঁচিয়ে দিলেন এমিলিয়ানো। শেষ বেলায় এসে অসাধারণ খেলা দেখাচ্ছে ফ্রান্স। 

গোটা ম্য়াচে যাকে খুঁজেই পাওয়া যায়নি, শেষ বেলায় এসে কি সব হিসাব পাল্টে দেবেন এমবাপে? দ্বিতীয় গোলটি দেখে সেটা মনে হতে বাধ্য। হাঁবিয়ের পাস পেয়ে যে ভাবে শরীর নিয়ন্ত্রণে রেখে বল মাটিতে পড়তে না দিয়ে শট করলেন, তা দেখে বোঝাই গেছে, তিনিই পরবর্তী প্রজন্মের নায়ক হওয়ার অধিকারী।

ডিসেম্বর ১৯, ২০২২

এসবিডি/এবি/

মন্তব্য করুন: