• ঢাকা

  •  সোমবার, মার্চ ৪, ২০২৪

জেলার খবর

মাদরাসার সভাপতি শ্বশুর, নিরাপত্তাকর্মী স্ত্রী, শ্যালিকা আয়া

বিশেষ প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: ২০:৪১, ৮ নভেম্বর ২০২৩

মাদরাসার সভাপতি শ্বশুর, নিরাপত্তাকর্মী স্ত্রী, শ্যালিকা আয়া

ছবি: নান্দাইলের জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নে অবস্থিত দেউলডাংরা নুরুল উলুম দাখিল মাদরাসা

নান্দাইল (ময়মনসিংহ): সুপারের শ্বশুর হলেন মাদরাসার সভাপতি, স্ত্রী নিরাপত্তাকর্মী আর আয়া হিসেবে আছেন শ্যালিকা। এমন এক পারিবারিক মাদরাসা রয়েছে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর ইউনিয়নের দেউলডাংরা গ্রামে।

প্রতিষ্ঠানটির নাম দেউলডাংরা নুরুল উলুম দাখিল মাদরাসা।

জানা গেছে, ১৯৬৩ সালে মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠিত হলেও সরকারি স্বীকৃতি পায় (এমপিও) ১৯৮৭ সালে। দীর্ঘ সময় পার হলেও মাদরাসার অবস্থা জরাজীর্ণ। নেই কোনো সাইনবোর্ড। মাদরাসার পশ্চিম, উত্তর ও দক্ষিণ দিকে তিনটি টিনশেড ঘর। দক্ষিণ পাশের টিনশেডটি মাদরাসার অফিস কক্ষ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। 

মাদরাসাটিতে শিক্ষার্থী রয়েছে ৩৫০ জন। বিপরীতে শিক্ষক-কর্মচারী রয়েছেন ১৯ জন। কাগজে-কলমে ৩৫০ শিক্ষার্থী থাকলেও নিয়মিত উপস্থিতি অর্ধেকেরও কম।

মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা কাজী নুরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি। এই মাদরাসার পাশেই রয়েছে আরেকটি মহিলা মাদরাসা। সেটার প্রতিষ্ঠাতাও তিনি। দুটি মাদরাসাই এমপিওভুক্ত। এর মধ্যে দাখিল মাদরাসার সভাপতির দায়িত্বে আছেন কাজী নুরুল ইসলাম।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দাখিল মাদরাসার সুপারের দায়িত্ব পালন করছেন প্রতিষ্ঠাতা সভাপতির মেয়ের জামাই মোহাম্মদ এনামুল হক। একই মাদরাসায় নিরাপত্তাকর্মী ও আয়া হিসেবে চাকরি দিয়েছেন নিজের দুই মেয়েকে। তারা হচ্ছেন- নিরাপত্তাকর্মী শামছুন্নাহার ও আয়া ছদরুন্নাহার। শামছুন্নাহার সুপারের স্ত্রী।

অন্যদিকে পাশের মহিলা মাদরাসায় সুপার হিসেবে রয়েছেন কাজী নুরুল ইসলামের আরেক মেয়ের জামাই। আর সেই মাদরাসার সভাপতি কাজী নুরুল ইসলামের স্ত্রী।

দাখিল মাদরাসাটিতে প্রায় পাঁচ মাস আগে নিরাপত্তাকর্মী পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিলে ওই পদের জন্য ছয়জন আবেদন করেন। শেষ পর্যন্ত সুপারের স্ত্রীকে নিয়োগ দেওয়া হয়। একই কায়দায় আয়া পদটি বাগিয়ে নেন সুপারের শ্যালিকা। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় নানা ধরনের সমালোচনা চললেও কারো কোনো কথায় পাত্তা দেয়নি মাদরাসা কর্তৃপক্ষ।

অভিযোগ উঠেছে, নিয়োগ পেলেও তারা কাজ করেন না। লাকি আক্তার নামে এক নারীকে দিয়ে কাজ করানো হয়। সেজন্য মাদরাসার তহবিল থেকে তাকে ভাতাও দেওয়া হয়।

নিরাপত্তাকর্মী শামছুন্নাহার ও আয়া ছদরুন্নাহার মাঝে মধ্যে মাদরাসায় গেলেও তারা কোনো কাজ করেন না। অফিসে সুপারের কাছেই বসে থাকেন। 

এ ব্যাপারে মাদরাসার সুপার মোহাম্মদ এনামুল হক বলেন, শ্বশুরই নিজের মেয়েদের চাকরি দিয়েছেন। এটা উনার ব্যাপার। আমি এ বিষয়ে কিছুই বলতে পারবো না।

নান্দাইল উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোফাখখারুল ইসলাম জানান, নিয়োগের সময় তার আপত্তি ছিল। তারপরও কীভাবে কী হলো জানেন না তিনি। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

নভেম্বর ৮, ২০২৩

শাহ্ আলম ভূঁইয়া/

মন্তব্য করুন: