• ঢাকা

  •  সোমবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২২

অপরাধ

ময়মনসিংহে অটোরিকশা ছিনতাই ও হত্যার ঘটনায় ৫ জন গ্রেপ্তার

অনলাইন ডেস্ক:

 প্রকাশিত: ১৪:১৯, ৫ নভেম্বর ২০২২

ময়মনসিংহে অটোরিকশা ছিনতাই ও হত্যার ঘটনায় ৫ জন গ্রেপ্তার

ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহ জেলার পাগলা থানা এলাকায় চালককে হত্যা করে অটোরিকশা ও মোবাইল সেট ছিনতাইয়ের ঘটনায় পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এ সময় ছিনতাই হওয়া অটোরিকশা ও মোবাইল সেটটি উদ্ধার করা হয়।

শনিবার (৫ নভেম্বর) দুপুরে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ।

গ্রেপ্তার আসামীরা হলেন, ময়মনসিংহ জেলার পাগলা থানার মোঃ মকবুল হোসেন (৫৫), কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া থানার জাবেদ (২৫), মোঃ কাজল মিয়া (৬০), মোঃ শরীফ (৩২) ও মোঃ সোহেল মিয়া (২২)।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। গত ৩১ অক্টোবর বেলা সোয়অ ১২টায় ময়মনসিংহ জেলার পাগলা থানাধীন খুরশিদ মহল ব্রিজের পূর্ব ঢালে রাস্তার দক্ষিণপাশে ঝোপঝাড়ের আড়ালে রেখে যাওয়া এক অজ্ঞাতনামা পুরুষের (৪৫) লাশ পাওয়া যায়। পরে পুলিশ সুপার নিহত ব্যক্তির পরিচয় উদ্ধার, হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন ও হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের জন্য জেলা গোয়েন্দা শাখাকে নির্দেশ দেন। পরে গোয়েন্দা বিভাগের একটি চৌকস টিম হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনের জন্য পাগলা থানা পুলিশের সঙ্গে অভিযান পরিচালনা করে। পরে নিহত ব্যক্তি গফরগাঁও থানার তেতুলিয়া গ্রামের মোঃ নাছির উদ্দিন (৪৫) বলে শনাক্ত করা হয়। তার বাবার নাম মৃত আব্দুর রহিম। তিনি দুই সন্তানের পিতা। অটোরিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন।

আরো জানানো হয়, প্রতিদিনের মতো গত ২৯ অক্টোবর বিকেলে বাড়ি থেকে অটোরিকশা নিয়ে বের হয় নাছির উদ্দিন। রাত গড়িয়ে সকাল হলেও তিনি বাড়ি ফিরে না আসায় পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে উৎকণ্ঠা দেখা দেয়। পরিবার, আত্মীয়-স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশিরা চারদিকে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে ৩১ অক্টোবর দুপুর সোয়া ১২টায় জেলার পাগলা থানাধীন খুরশিদ মহল ব্রিজের পূর্ব ঢালে রাস্তার দক্ষিণপাশে ঝোপের আড়ালে লাশ পাওয়ার সংবাদ পেয়ে পরিবারের লোকজন এসে লাশ শনাক্ত করেন।

পরে এই ঘটনায় নিহত নাছির উদ্দিনের ছোট ভাই নুরুল আমিন বাদী হয়ে অভিযোগ দায়ের করলে পাগলা থানার মামলা নং-০১,তারিখ-০১/১১/২০২২ খ্রিঃ, ধারা-৩৯২/৩০২/২০১/৩৪ পেনাল কোড রুজু হয়।

অজ্ঞাতনামা আসামিরা ২৯ অক্টোবর ঘটনাস্থলে নাছির উদ্দিনকে হত্যা করে তার অটোরিকশা ও ব্যবহৃত মোবাইল সেটটি ছিনিয়ে নেয়। জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ধারাবাহিক অভিযান পরিচালনা করে হত্যাকাণ্ড ও অটোরিকশা ছিনতাইয়ের কাজে জড়িত আসামীদের গ্রেপ্তার করে।
 
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, আসামী মোঃ মকবুল হোসেন (৫৫) একজন পেশাদার ও অভ্যাসগত অপরাধী। একেক সময়ে ভিন্ন ভিন্ন লোকজনকে ডেকে এনে দীর্ঘদিন যাবৎ সে ময়মনসিংহ ও কিশোরগঞ্জ জেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় চালককে কখনো মারপিট করে, কখনো নেশাজাতীয় বিষ প্রয়োগে অচেতন করে আবার কখনো নির্দিষ্টস্থানে রেখে দেওয়া অটোরিকশা ছিনতাই করে আসছে। এই আসামীরা জেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় সাম্প্রতিক সময়ে একটি অটোরিকশা চোরচক্র গড়ে তোলার জন্য সংঘবদ্ধ হওয়ার প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছে।

মোঃ মকবুল হোসেনের বিরুদ্ধে একাধিক চুরি, ডাকাতি, অস্ত্র ও হত্যা মামলা রয়েছে। 

জানা যায়, কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া থানার পুলেরঘাট বাজারে আসামী মোঃ মকবুল হোসেন একটি সেলুনে চুল কাটার কাজের আড়ালে অপরাধচক্রের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ ও পরিকল্পনায় জড়িত থাকে। গত ২৭ অক্টোবর তিনি গ্রেপ্তার অন্যান্য আসামিদেরকে পুলেরঘাট বাজারে ডেকে এনে চালককে হত্যা করে অটোরিকশা ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করে। সেই মোতাবেক ২৯ অক্টোবর দুপুর আড়াইটায় পুলেরঘাট বাজারে মোঃ মকবুল হোসেন, জাবেদ, মোঃ কাজল মিয়া, মোঃ শরীফ একত্রিত হয়ে প্রথমে হোসেনপুর এবং পরবর্তীতে সন্ধ্যা অনুমান ৭টায় গফরগাঁওয়ের জামতলা চৌরাস্তায় আসে। 

পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক আসামীরা যাত্রীবেশে হোসেনপুর যাওয়ার কথা বলে রাত ৮ টায় নাছির উদ্দিনের অটোরিকশায় উঠে। পরে রাত অনুমান পৌণে ৮টায় হোসেনপুর ব্রিজের পূর্ব ঢালে নির্জন জায়গায় পৌঁছে নাছির উদ্দিনের গলায় গামছা পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে লাশ রাস্তার পাশে ফেলে অটোরিকশা ও নাছিরের ব্যবহৃত মোবাইল সেটটি নিয়ে যায়। 

আসামী মোঃ সোহেল মিয়ার হেফাজত থেকে অটোরিকশাটি উদ্ধার করা হয়। 

গ্রেপ্তারের পর আসামীদের আদালতে সোপর্দ করা হচ্ছে বলে জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, কিশোরগঞ্জ, গাজীপুর ও টাঙ্গাইল জেলার সাথে ময়মনসিংহ জেলার সীমান্তবর্তী অপরাধ প্রবন এলাকায় এ ধরনের অপরাধচক্র যাতে সংঘটিত হতে না পারে সেজন্য ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করছে। 

নভেম্বর ৫, ২০২২

এসবিডি/এবি/

মন্তব্য করুন: