• ঢাকা

  •  রোববার, জানুয়ারি ২৯, ২০২৩

অপরাধ

আলমডাঙ্গায় সুনীল হত্যা মামলা: ২৯ বছর পর তিন আসামীর যাবজ্জীবন

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি:

 প্রকাশিত: ১৬:৫০, ১ ডিসেম্বর ২০২২

আলমডাঙ্গায় সুনীল হত্যা মামলা: ২৯ বছর পর তিন আসামীর যাবজ্জীবন

ছবি: সময়বিডি.কম

চুয়াডাঙ্গা: চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার রায়লক্ষ্মীপুর গ্রামের কৃষক সুনীল কুমার দাসকে হত্যার দায়ে দীর্ঘ ২৯ বছর পর দুই ভাইসহ তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত দায়রা জজ-২ আদালতের বিচারক মাসুদ আলী জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় ঘোষণা করেন। 

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলো - আলমডাঙ্গার রায়লক্ষ্মীপুর গ্রামের কালু ফকিরের ছেলে সুলতান হোসেন (৫৫), লালু মন্ডলের ছেলে লিয়াকত আলী ওরফে ন্যাকো (৫৮) এবং তার ভাই শওকত আলী (৬০)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, জমিজমা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে ১৯৯৩ সালের ৯ ডিসেম্বর রাত ৮টার দিকে দণ্ডিত আসামিরাসহ অন্তত ১৫-১৬ জন ব্যক্তি সুনীলদের বাড়িতে গিয়ে সুনীলকে তার গায়ে থাকা চাদর দিয়ে দু’হাত বেঁধে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। ঘটনাস্থলেই মারা যায় সুনীল।

এই ঘটনার পরদিন নিহতের ভাই অনিল কুমার দণ্ডিত আসামিসহ অজ্ঞাত আসামিদের নামে থানায় এজাহার দায়ের করেন।

মামলায় মোট ১০ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। সাক্ষ্য প্রমাণে অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আদালতের বিজ্ঞ বিচারক আসামি সুলতান হোসেন, লিয়াকত আলী ও শওকত আলীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন। একইসাথে দণ্ডপ্রাপ্ত সবাইকে ১০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড করা হয়। অনাদায়ে আরও ৬ মাসের দণ্ডাদেশ দেয়া হয়।

চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত দায়রা জজ-২ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর গিয়াসউদ্দিন জানান, এ হত্যা মামলায় মোট আসামী ছিলেন ২৫ জন। তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। মামলার বাকি আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের খালাস প্রদান করা হয়েছে।

ডিসেম্বর ১, ২০২২

সালাউদ্দীন কাজল/এবি/

মন্তব্য করুন: